উগ্র জঙ্গিবাদ ঠেকাতে বাংলাদেশের পাশে যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রের উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী মানপ্রিত সিং আনন্দ মনে করেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ যে অগ্রগতি অর্জন করেছে, তা অভাবিত।

যুক্তরাষ্ট্রের উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী মানপ্রিত সিং আনন্দ মনে করেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ যে অগ্রগতি অর্জন করেছে, তা অভাবিত। ‘উন্নয়নের মডেল’ হিসেবে স্বীকৃত এই দেশকে উগ্র জঙ্গিবাদের মতো সমস্যা এড়াতে সর্বত সহযোগিতা দিতে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত। সেই লক্ষ্যে তারা ইতিমধ্যে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে।
গতকাল মঙ্গলবার ওয়াশিংটন ডিসিতে রক্ষণশীল গবেষণা প্রতিষ্ঠান হেরিটেজ ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত ‘জঙ্গিবাদ ঠেকাতে বাংলাদেশ কী করতে পারে?’ শীর্ষক এক আলোচনা অনুষ্ঠানে মানপ্রিত সিং আনন্দ এই মন্তব্য করেন।
যুক্তরাষ্ট্রের উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশের অর্জন এক কথায় ‘তুলনাহীন’। যেহেতু বাংলাদেশের ব্যাপারে আমরা এতটা আশাবাদী, তাই বাংলাদেশে ধর্মীয় উগ্রবাদের উত্থানে যুক্তরাষ্ট্র এতটা উদ্বিগ্ন। বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারকে এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব রকম সহযোগিতা প্রদানে যুক্তরাষ্ট্র অঙ্গীকারবদ্ধ। দুই সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ে এ নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে।
গত সপ্তাহে ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের একজন সাবেক কর্মী ও ইউএসএআইডির কর্মকর্তার হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে মানপ্রিত সিং আনন্দ বলেন, বাংলাদেশকে কীভাবে সহযোগিতা করা যায়, সে ব্যাপারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। সে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়াল ইতিমধ্যে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়ে গেছেন।